শুরু হয়েছে শীতের আমেজ : ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে শৈত্য প্রবাহ হতে পারে

bnews21.com

 

নিউজ ডেস্কঃ সারাদেশে দিনে-রাতে তাপমাত্রা কমা-বাড়ার মধ্যদিয়ে শুরু হয়েছে শীতের আমেজ। ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত শৈত্য প্রবাহ হতে পারে। চলতি নভেম্বরের মাঝামাঝি সময় থেকে পাওয়া যাচ্ছে শীতের আগমনী বার্তা। গত কয়েকদিন ধরে দিন ও রাতের তাপমাত্রা ওঠানামা করায় প্রকৃতিই বলে দিচ্ছে শীতের আগাম বার্তার কথা।

 

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, গত দু’বছরের তুলনায় এবছর আগেভাগেই শীত পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেইসাথে বাড়তে পারে শীতের তীব্রতাও।

 

আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, দেশে সাধারণত মৃদু ,মাঝারী ও তীব্র-এই তিন ধরনের শৈত্য প্রবাহের প্রবণতা রয়েছে। চলতি নভেম্বর মাসে এ ধরনের কোনো শৈত্য প্রবাহের সম্ভাবনা নেই। তবে ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত শৈত্য প্রবাহ হতে পারে ।

 

আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) মো. আজিজুর রহমান জানান, ‘এবছর অন্যবারের তুলনায় আগেভাগেই শীত আসবে। তবে অস্বাভাবিক রকম শীত আগেও পড়েনি এবারো পড়বে না। বিগত দু’বছরের তুলনায় এবারে শীত মৌসুমের মাঝামাঝি সময়ে (শীতের মৌসুম বলতে নভেম্বর, ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাস বোঝায়) আগের বছরগুলোর তুলনায়  শীতের প্রভাব বেশি থাকবে।’

 

প্রতিবছর দেশের হিমালয় অঞ্চলীয় উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে শীতের প্রভাব বেশি অনুভূত হয়-এ কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এসব অঞ্চলে শীত-মৌসুমের শুরু থেকেই শীতের প্রকোপ বেশি দেখা যায়। আবার অবকাঠামোগত উন্নয়ন,জনসংখ্যার ঘনত্ব ও দালান-কোঠার জন্য দেশের শহরাঞ্চলের শীতের প্রবাহমানতা বেশি টের পাওয়া যায় না। অপরদিকে গাছপালা বেষ্টিত বিভাগ ও জেলা শহরগুলোতেও শীতের আমেজ বেশি পাওয়া যায়।

 

আজিজুর রহমান জানান, শহর বা আরবান এরিয়ায় অবকাঠামোগত ও জনসংখ্যার কারণে শীতের তাপমাত্রা কম। গ্রামঞ্চলে সবুজ বনায়ন বেশি থাকে, সেই অঞ্চলে শীতের প্রভাবও তুলনামূলক বেশি হয়ে থাকে। এটা স্বাভাবিক অবস্থা। এসব অঞ্চলে প্রকৃতির ভারসাম্য যেমন রক্ষা পায়, তেমনি বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট নানা দুর্যোগ থেকেও রক্ষা করে এই ভারসাম্য।

 

তিনি আরো বলেন, চলতি নভেম্বরের শেষের দিকে তাপমাত্রা হ্রাস পাবার প্রবণতা রয়েছে, সেই সাথে শীতের প্রবণতাও বাড়বে। অপরদিকে আগামী ডিসেম্বরের শেষের দিকে দেশের উত্তর,উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে ১ থেকে ২টি মৃদু (৮-১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস) এবং মাঝারী (৬-৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস) ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

 

উল্লেখ্য, রাতের তাপমাত্রা বা সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে গেলে তাকে তীব্র শৈত্য প্রবাহ হিসেবে ধরা হয়। আর তাপমাত্রা ৬-৮ ডিগ্রির মধ্যে থাকলে মাঝারি এবং তাপমাত্রা ৮-১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকলে তাকে মৃদু শৈত্য প্রবাহ বলে নির্ধারণ করা হয়ে থাকে।